অবশেষে দুঃস্বপ্নের গুহা থেকে মুক্ত ওরা ১৩ জন

অবশেষে দুঃস্বপ্নের গুহা থেকে মুক্তি মিলল। মুক্ত বাতাসে শ্বাস নিল থাই খুদে ফুটবলাররা। থাইল্যান্ডের জলমগ্ন গুহা থাম লুয়াংয়ের চার কিলোমিটার ভেতরে দুই সপ্তাহ আটকে থাকার পর রোববার এক শ্বাসরুদ্ধকর অভিযানে সন্ধ্যা নাগাদ প্রথমে চার কিশোরকে বাইরে বের করে আনেন উদ্ধারকারীরা।

এর পর স্থগিত করা হয় উদ্ধার অভিযান। ১০-১২ ঘণ্টা পরই ফের তা শুরু হওয়ার কথা। ১২ ফুটবলার ও তাদের কোচকে উদ্ধারে ঝুঁকি নিয়েই সকাল ১০টার দিকে চূড়ান্ত অভিযান শুরু করে কর্তৃপক্ষ।

অবশেষে দুঃস্বপ্নের গুহা থেকে মুক্ত ওরা ১৩ জন

দক্ষ দেশি-বিদেশি ১৩ ডুবুরিসহ ১৮ জন ঢোকেন গুহার ভেতরে। গুহার বাইরে অপেক্ষায় থাকেন স্বজনরা। প্রস্তুত রাখা হয় ট্রলি, অ্যাম্বুলেন্স, আসে উদ্ধারকারী হেলিকপ্টার। অভিযান চলাকালে মানবিক কারণেই উৎকণ্ঠায় সময় কাটছে থাইল্যান্ডবাসীর। আর এ উদ্ধার অভিযানের দিকে তাকিয়ে রয়েছে সারাবিশ্ব।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এক টুইটে জানিয়েছেন, গুহায় আটকা শিশুদের উদ্ধারে থাই সরকারের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করছে যুক্তরাষ্ট্র। খবর ব্যাংকক পোস্ট, বিবিসি ও সিএনএনের

অবশেষে দুঃস্বপ্নের গুহা থেকে মুক্ত ওরা ১৩ জন

গত ২৩ জুন ফুটবল অনুশীলন শেষে ২৫ বছর বয়সী কোচসহ ওই ১২ কিশোর ফুটবলার গুহাটির ভেতরে ঘুরতে যায়। তখন বাইরে তুমুল বৃষ্টিতে গুহার প্রবেশমুখ বন্ধ হয়ে যায়। জলমগ্ন হয়ে পড়ে গুহার সুড়ঙ্গপথ।

এতে আর বাইরে বের হতে পারেনি ওই কিশোররা। খুদে ফুটবলাররা আটকা পড়ে ৪ কিলোমিটার ভেতরে। আটকে পড়ার টানা ৯ দিন পর ২ জুলাই গুহার ভেতরে জীবিত অবস্থায় তাদের শনাক্ত করেন ডুবুরিরা।

তাদের জন্য অপিজেন সিলিন্ডার ও খাবার দিয়ে ফিরে আসার পথে প্রাণ হারান এক ডুবুরি। তাদের উদ্ধারে নানা প্রচেষ্টার পর গত রোববার থাইল্যান্ড সরকার দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞদের নিয়ে স্মরণকালের সবচেয়ে বড় উদ্ধার অভিযান শুরু করে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*