ডিসেম্বরে ১০ ডিগ্রির নিচে নামতে পারে তাপমাত্রা

ঋতু শরৎকে বিদায় দিয়ে হেমন্তকে বরণ করেছে প্রকৃতি। হেমন্তকেই বলা হয় শীতের পূর্বাভাস। হেমন্তের রাতে এখন মৃদু কুয়াশা; বাতাসে শীতের হিম হিম স্পর্শ। কুয়াশার আঁচল সরিয়ে শিশিরবিন্দু মুক্তো দানার মতো দ্যুতি ছড়াতে শুরু করেছে ভোরের নরম রোদে। সাদা কাশফুলে পড়ছে হেমন্তর শিশির বিন্দু। সকালে দেখা মিলছে সাদা কুয়াশার ভেলার। এ কুয়াশা জানান দিচ্ছে শীতের বার্তা। রাজশাহী, দিনাজপুর, পঞ্চগড়সহ দেশের বিভিন্নস্থানে দেখা মিলছে এমন চিত্র।
আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, ডিসেম্বরে শুরুর দিকে তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের নিচে এসে দেশজুড়ে শৈত্যপ্রবাহ বয়তে পারে।
আবহাওয়াবিদ মো. আব্দুর রহমান আরটিভি অনলাইনকে জানিয়েছেন, দেশের বিভিন্ন স্থানে এরই মধ্যে শীত অনুভব হচ্ছে। নভেম্বরের শেষের দিকে রাজধানীতেও শীত অনুভব হবে। ধীরে ধীরে বাড়বে মৌসুমী শীত। ডিসেম্বরের শুরুর দিকে তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমে আনবে শৈত প্রবাহ। যা দেশের বিভিন্নস্থানে অনুভব হবে। এ তাপমাত্রা উঠানামার মধ্যে থাকবে। তবে যেসবস্থানে ধুলিকনার পরিমাণ বেশি থাকবে সেসব এলাকায় শৈত্যপ্রবাহ কম বুঝা যাবে।
অবশ্য শীত আসতে আরও কিছুদিন বাকি থাকলেও শুরু হয়ে গেছে প্রস্তুতি। শীতের প্রধান আকর্ষণ খেজুরের রস সংগ্রহে জেলার বিভিন্ন এলাকার গাছিরা গাছ প্রস্তুতের কাজ শুরু করে দিয়েছেন। শহরের অনেক জায়গায় ভাপাপিঠাও বিক্রি করতে দেখা যাচ্ছে। কাপড় ব্যবসায়ীরাও প্রস্তুতি নিচ্ছেন মোকাম থেকে শীতের পোশাক কিনে আনার। কেননা, আর কয়েক দিন পরেই যে জমবে বিকিকিনি।
আবহাওয়ার পরিবর্তনে শিশু ও বৃদ্ধদের সাবধানে চলাচল করতে বলেছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। এ বিষয়ে ডা. দিপ্রা নাথ আরটিভি অনলাইনকে বলছেন, ঋতু পরিবর্তনজনিত কারণে নানা ধরনের উপসর্গ দেখা দিতে পারে। একটু সতর্ক না থাকলে সর্দি-কাশি-জ্বর, পেটের পীড়া, শ্বাসকষ্টের মতো সমস্যা দেখা দিতে পারে।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*