স্বামী সহবাসের জন্য কি স্ত্রীর সাথে জোর করতে পারে? জেনে নিন…

মহিলারা “অবজেক্ট” নয়৷ যদি কোনও মহিলা না চায়, সে স্বামীর কাছে নাই থাকতে পারে৷ কিন্তু কোনও স্বামী তার স্ত্রীকে একসঙ্গে থাকার জন্য জোর করতে পারে না৷ জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট৷ সম্প্রতি এক স্ত্রী তাঁর স্বামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ জানিয়ে ছিলেন৷

অভিযোগ ছিল, তাঁর স্বামী তাঁর সঙ্গে ভালো ব্যবহার করেন না৷ প্রতিটি মুহূর্তে নিষ্ঠুরতার পরিচয় দেন৷ সেই কারণে তিনি তাঁর স্বামীর সঙ্গে থাকতে চান না৷

কিন্তু তাঁর স্বামী তাঁকে একসঙ্গে থাকার জন্য জোর করছেন৷ বিচারপতি দীপক গুপ্ত ও মদন বি লোকুরের বেঞ্চে ওঠে মামলাটি৷ তাঁরা ওই মহিলার স্বামীকে আদালতে উপস্থিত হওয়ার নির্দেশ দেন৷

সেখানে বলেন, ওই মহিলা কোনও অবজেক্ট বা কারোর সম্পত্তি নয়৷ তাই স্ত্রী হলেও তিনি ওই মহিলাকে একসঙ্গে থাকার জন্য জোর করতে পারেন না৷ আর তাছাড়া যখন স্ত্রী নিজে চাইছেন না, তখন তিনি কেন একসঙ্গে থাকতে চাইছেন?

সুপ্রিম কোর্ট ওই ব্যক্তিকে তাঁর সিদ্ধান্ত ফের একবার ভেবে দেখতে বলেন৷ সেই সঙ্গে জানায়, ওই মহিলা কারোর সম্পত্তি নয়৷ কোনও ব্যক্তি তাঁর সঙ্গে এমন কীভাবে করতে পারে? ওই মহিলার আইনজীবী জানিয়েছেন, তাঁর ক্লায়েন্ট বিচ্ছেদ চান৷

স্বামী তাঁর ক্লায়েন্টের সঙ্গে নিষ্ঠুর আচরণ করেন৷ এভাবে তাঁর ক্লায়েন্ট একসঙ্গে থাকতে চান না৷ তিনি বা তাঁর ক্লায়েন্ট ৪৯৮এ ধারা তুলে নিতে পারেন৷ কোনও খোরপোষও দিতে হবে না৷ তবে তার জন্য একটি শর্ত রয়েছে৷ তাঁর ক্লায়েন্ট স্বামীর সঙ্গে থাকতে চান না৷

সুপ্রীম কোর্ট এই মামলাটিতে আগেই জানিয়েছিল, স্বামী ও স্ত্রী দুজনই শিক্ষিত৷ তাঁরা তাঁদের বিষয়টি নিয়ে মামলা মামলা দায়ের করার পরিবর্তে বিষয়টি তাঁরা আদালতের বাইরেই মিটিয়ে নিতে পারেন৷

সুপ্রিম কোর্ট দুজনের মধ্যে মধ্যস্থতা করতে বলে৷ কিন্তু পরে সুপ্রিম কোর্টকে জানানো হয়, সমস্যার সমাধান হয়নি৷ এরপরই মামলা আদালতে ওঠে৷

অভিযোগ ছিল, তাঁর স্বামী তাঁর সঙ্গে ভালো ব্যবহার করেন না৷ প্রতিটি মুহূর্তে নিষ্ঠুরতার পরিচয় দেন৷ সেই কারণে তিনি তাঁর স্বামীর সঙ্গে থাকতে চান না৷

কিন্তু তাঁর স্বামী তাঁকে একসঙ্গে থাকার জন্য জোর করছেন৷ বিচারপতি দীপক গুপ্ত ও মদন বি লোকুরের বেঞ্চে ওঠে মামলাটি৷ তাঁরা ওই মহিলার স্বামীকে আদালতে উপস্থিত হওয়ার নির্দেশ দেন৷

সেখানে বলেন, ওই মহিলা কোনও অবজেক্ট বা কারোর সম্পত্তি নয়৷ তাই স্ত্রী হলেও তিনি ওই মহিলাকে একসঙ্গে থাকার জন্য জোর করতে পারেন না৷ আর তাছাড়া যখন স্ত্রী নিজে চাইছেন না, তখন তিনি কেন একসঙ্গে থাকতে চাইছেন?

সুপ্রিম কোর্ট ওই ব্যক্তিকে তাঁর সিদ্ধান্ত ফের একবার ভেবে দেখতে বলেন৷ সেই সঙ্গে জানায়, ওই মহিলা কারোর সম্পত্তি নয়৷ কোনও ব্যক্তি তাঁর সঙ্গে এমন কীভাবে করতে পারে? ওই মহিলার আইনজীবী জানিয়েছেন, তাঁর ক্লায়েন্ট বিচ্ছেদ চান৷

স্বামী তাঁর ক্লায়েন্টের সঙ্গে নিষ্ঠুর আচরণ করেন৷ এভাবে তাঁর ক্লায়েন্ট একসঙ্গে থাকতে চান না৷ তিনি বা তাঁর ক্লায়েন্ট ৪৯৮এ ধারা তুলে নিতে পারেন৷ কোনও খোরপোষও দিতে হবে না৷ তবে তার জন্য একটি শর্ত রয়েছে৷ তাঁর ক্লায়েন্ট স্বামীর সঙ্গে থাকতে চান না৷

সুপ্রীম কোর্ট এই মামলাটিতে আগেই জানিয়েছিল, স্বামী ও স্ত্রী দুজনই শিক্ষিত৷ তাঁরা তাঁদের বিষয়টি নিয়ে মামলা মামলা দায়ের করার পরিবর্তে বিষয়টি তাঁরা আদালতের বাইরেই মিটিয়ে নিতে পারেন৷

সুপ্রিম কোর্ট দুজনের মধ্যে মধ্যস্থতা করতে বলে৷ কিন্তু পরে সুপ্রিম কোর্টকে জানানো হয়, সমস্যার সমাধান হয়নি৷ এরপরই মামলা আদালতে ওঠে৷

বি: দ্র : ই্উটিউব থেকে প্রকাশিত সকল ভিডিওর দায় সম্পুর্ন ই্উটিউব চ্যানেল এর । এর সাথে আমরা কোন ভাবে সংশ্লিষ্ট নয় এবং আমাদের পেইজ কোন প্রকার দায় নিবেনা। ভিডিওটির উপর কারও আপত্তি থাকলে তা অপসারন করা হবে। প্রতিদিন ঘটে যাওয়া নানা রকম ঘটনা আপনাদের মাঝে তুলে ধরা এবং সামাজিক সচেতনতা আমাদের লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য ।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*